জ্যোতিরিক্দ্রনাথের

নাট্যসংগ্রহ

বিশ্বভারতী গ্রস্থনবিভাগ কলিকাতা

প্রথম প্রকাশ অগ্রহায়ণ ১৩৭৬ : ১৮৯১ শক

বিশ্বভারতী ১৯৬৯

প্রকাশক বিশ্বভারতী গ্রস্থনবিভাগ « দ্বারকানাথ ঠাকুব লেন। কলিকাতা! মুদ্রক শ্রীরণজিৎকুমার দত্ত

নবশক্তি প্রেস। ১২৩ আচার্য জগদীশ বন্থ রোড কলিকাতা ১৪ চা)

সূচীপত্র

কিঞ্চিৎ জলযোগ পুরুবিক্রম নাটক ৩৫ সরোজিনী নাটক ১১১ তব রর অশ্রমতী নাটক ২৮৯ মানময়ী ৪১৭ স্বপ্ীময়ী ৪২৯ “হিতে বিপরীত ৫৫৩ বসম্ত-লীলা ৫৭১ ধ্যানভঙ্গ ৫৯৩ ংযোজন পুনবসম্ত ৬১৭

প্রসঙ্গ কথা! ] ৬৪৩

জ্যোতিরিন্্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

কিঞ্চি জলযোগ

নাট্যোল্িখিত ব্যক্তিগণ

বাবু পুর্ণচন্দর একজন ডাক্তার

বিধুমুখী ঘোষ পুর্ণবাবুর স্ত্রী

পেরুরাম একজন বেকার লোক ভোলা! পুর্ণবাবুর পুরাতন ভূত্য

আর-একজন ভৃত্য

জ্যোতিরিন্দ্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

প্রথমাঙ্ক

প্রথম গর্ভাঙ্ক

পূর্ণবাবুর বৈঠকখানা-- চেয়ার টোঁবল আয়না কৌচ ঘড়ি প্রভৃতি ছারা সুুসঙ্জীভূত

এই ঘরের প্রবেশদ্বারের সম্মুখে ভোলা শুইয়া কখনো মহাভারত পাঠ করিতেছে, কখনো হাই তুলিতেছে, কখনো -বা ঘড়ির দিকে দৃষ্টিপাত করিতেছে

ভোলা। (ঘড়ির দিকে দুষ্টিপাত করিয়া) হরি! (হাই তুলি) সবে আযড্ড1 আহন পাচ্ভার মধ্যি আলি হয়? আজকাল কভাডির, আর গিশ্নিডির এইবপই চল্চে! আ। সে এক কল গেছে, যহুন ক্ত্তাডির বিয়া হয় নাই, সে কাল আর ফিরি আস্বে ন।। কাজ নাই, কর্ম নাই, খাতাম দাতাম আর দিব্যি করি ঘুম মারতাম! গিন্নিভি য্যান রায়বাঘিনী হয়েছেন; কত্তাকে ওঠ বললি ওঠেন, বোষ্‌ বললি বসেন! ( উঠিয়! বসিয়া, হাই তুলিয়া, স্থর করিয়া মহাভারত পাঠের উদ্যোগ-_ পুনশ্চ হাই তুলন, তৎ্পরে পুত্তক নিক্ষেপ করিয়া ) বেটারা কি বোয়ে ল্যাখে, সাপ নাই, ব্যাং নাই; দূর কর। ( নেপথ্যে পাক্ষি বেহারাধিগের হু হু শব্দ) এই যে, পাক্ধিতে বুঝি তারা আলেন। দূর কর, আর পারা যায় না। যহন ডাক্‌ দেবেন আযানে,

তহন যাব , আযাহন তো এক ছিলিম তামুক খাই গিয়ে [ ভোলার প্রস্থান

বারের নিকট অতি ধীরে ধীরে ভয়ে ভয়ে পেরুরামের আগমন

পেরু (প্রবেশ করিয়া ঘরের ভিতর অনেকে লোকজন আছে মনে করিয়া ) গোলামকে মাপ করবেন, আমি পথ ভুলে-_ ( তৎ্পরে ঘরের চতুদ্দিক অবলোকন করিয়। কাহাকেও ন। দেখিতে পাওয়ায় স্বাগত ) এখানে যে কাকেও দেখছি নে? বাঁ! কোথায় এসে পড়লেম? কেবল আমার বাড়িওয়ালার দোষে এইসব ঘটল। সেই ব্যক্তি তাহার কন্তার বিবাহ উপলক্ষে নাচ দ্রেয়, সেই নাচে আমাকে নিমন্ত্রণ করেছিল; সে ব্যক্তির সহিত পাছে মনান্তর হয়, এইজন্য সেখানে গেলেম, না হলে, আমি বড়ো কোথাও যেতে টেতে ভালোবাসি নে। সেখানে গিয়েছি, না পড়বি তে। পড় একেবারে

জ্যোতিরিক্্নাথের নাট্যসংগ্রহ

সেই পাওনাদার বেটার সন্মুখে গিয়ে পড়েছি ! সে বেট। আমার দিকে কটমট করে তাকাতে লাগল। ওই যেমন তাকে দেখা, আর অমনি সিড়ি দিয়ে 'তত্তড় করে নীচে পিট্টান! সে বেটাও পিছনে পিছনে ছুটল! আমাক আর-একটু হলেই ধরত আর-কি, যদ্দি হঠাৎ একট1 ফন্দি মনে না আসত যে মিরজাপুরে কি স্তানের গির্জে আছে সেইখানে দেখি, এক সার পাক্কি রয়েছে বেয়ারাগুণ মাথায় হাত দ্রিয়ে ঘুমচ্ছে। আমি অমনি একটা পাক্কিতে ঢুকে পড়লেম মনে করলেম, আর-এক দরজা দিয়ে বেরিয়ে পালাব, না, ম|! আমি ঘেউ পাঁক্কর মধ্যে দিয়ে যাব, ন। বেয়ারাগুণ শব্দ শুনতে পেয়েই, গা ঝাড়া দিয়ে উঠেই, কথা নেই বার্তা নেই, পান্কি কাদদে করেই উহ উহ করে দৌড়ুতে লাগল। আমি যত বলি থাম্‌ থাম্‌, কিছুই শুনতে পায় ন1। চুরোটের নেশায় ভে হয়ে চলেছে__ একবার মনে করলেম, লাফিয়ে পড়ি, কিন্তু আবার মনে হল, যি পাওনাদার বেটা পিছনে পিছনে থাকে ; ভার পর মনে করলেম, এক প্রকার ভালোই হয়েছে, যেখানে ইচ্ছে নিয়ে যাক না কেন ?-_ এখন তো পান্কির দরজা ভালে। করে বন্দ করে গট হয়ে বসি, পাওনাদার বেটা পিছনে পিছনে আর কত দূর ছুটপে? তার পরে তে। এই বাড়ির উঠোনে এসে পান্কি নাবালে। কলের পুত্ুলটির মতে? আমিও তো নাবলেম, নেবেই দেখি আমার সামনে একট। সিডি উঠেছে এই সময়কে সেই গণত্কার ঠাকুরের কথাট। হঠাৎ মনে পড়ল। এই যেমন মনে পড়া, আর আমিও অমনি তত্তড় করে সিডি দিয়ে উঠে পডলেম ; উঠে তো| এই ঘরে এসেছি, কেউ কোথাও নেই, সেই গণৎকার ঠাকুরের কথাটা বুঝি এইবাঁব খাঁটল , এই ছয় মাস ধরে কর্মের চেষ্টায় ফিরছি, কোনো কর্মই তো জুটল না। কিন্তু সেই গণংকার ঠাকুর, আমার কামিনীর বাঁডিতে ভাত দেখে বলেছিল যে, একদিন বেডাতে বেড়াতে হঠাৎ একট। বাড়িতে তুমি গিয়ে পডবে, সেখানে যদি ভয় না পেয়ে তিষ্টে থাকতে পার, তা হলে তোম।র কর্ম জুটবে।

বাবুঝি সেই বাড়িই হয়, আধার দেখছি এখনে কেউ নেই তবে কর্ম দেবে কে? বুঝেছি বিধির ফের কে বুঝতে পারে- আমি শেষে হয়তো এই বাড়ির মালিক হয়ে দাড়াব! কামিনী, তোর কপাল মন্দ, এখন যদি তুই আমার থাকতিস, হলে কৃষ্ণ রাধার মতো যুগল মৃত্তিতে সুখে ছুজনায় এই সোনার লকঙ্কায় বাস করতেম। এই» চিঠিখানা, যা তোর ঘরে কুড়িয়ে

কিঞ্চিৎ জলযোগ

পেয়েছি, তা দেখে তো! বেশ বোধ হচ্ছে, যে আর-এক জনের প্রতি তোর মন গেছে (পত্র পাঠ) "প্রেয়সি ' কাল তোমাব সঙ্ষে দেখা হবে_-প।” বেটা কে? এর তে কিছুই সন্ধান পাচ্ছি নে। থা হোক্‌, এর সন্ধানট| নিতে হবে। কামিশি। এই কি তোর ধর্ম; এত দিন খাওয়ালাম পরালাম, শেষকাঁলে কিনা তুই আর-এক জনের হলি ? অন্যমনে গান কগিতে করিতে পদী,র। ধু আমি আছি তোর। এত যে খাবাবি করলি মোর মেগে পেতে কর্জ করে, খাওয়ালাম পরালাম তোরে,

এখন কেবল বাকি আছে, হতে সিদেল চোর

বাব।! কোথায় এসে পড়েছি, সততা সত্যি কি শেষে এই বাড়ির মালিক হয়ে দাডাব? কিন্তু ভিতরট| কেমন কেমন করহে যে; মন! সাহস ধরো, (বুক ফুলাইয়া সাহসের ভর্গিম। ) ( নেপথ্যে হঠাৎ প্রহারের ধ্বনি উডে বেয়ারাদ্রিগের “ঘেরে পকাই দিল, পকাই দিল” ইত্যাদি শব্দ) বাধা! আবার কি? এখানে লোকজন আছে না কি? (ভয়ে কম্পমান ঘর হইতে বাহিরে গিয়া এক বারাপগ্ডায় উপস্থিত ) এখান দিয়ে কোথায় যাওয়া যায় দেখ। যাক। ( পলাইবার পথ অন্বেষণ ) এমন বিপদেও লো!কে পড়ে গা; হা কামিনি! এইবার বুঝি__

[ পেরুরামের প্রস্থান পূরণ ডাক্তীর তার স্ত্রী বিধুমুখী ঘোষের প্রবেশ

বিধুমুখী। আজ ভাই যে কি বিপদে পড়েছিলাম, তা ঈশ্বর জানেন দ্ৈবাৎ কখনো কেউ একটু মাতাল হল, তা নয় সওয়। যায়; কিন্তু বেটার! এরূপ ঘোর পাপ-পক্কে নিমগ্ন, সংসারের ঘন মোহে আচ্ছন্ন হৃদয় এবপ শু, পাপ তাপে অসাড হ্ইয়। গেছে, যে মদমত্ত হয়ে, আমাকে না নিদ্বেই হ্যচ্ছন্দে পাক্কিটা নিয়ে উড়ে বেহারাগুণ চলে গেল।

পুর্ণ। (তাহার টুপি চাপকান খুলিয়া টেবিলের উপর রাখিয়া তরলভাবে) মাই ডিয়ার ডালিং, কি বিষয় তুমি লেকচ।র দিচ্ছ বাবা? মদনমত্ত হয়ে এসেছ, এই বলছ ? মদনমত্ত হয়েছ, বেশ কথা আমি তোমার তো মদনমোহন রয়েছি (আপনাকে অঙ্গুলির দ্বারা প্রদর্শন )

জ্যোতিরিজ্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

বিধুমূধী। কি তুমি পাগলের মতো বকছ, কি সব অশ্লীল কথা মুখে আনছ ?

ূর্ণ। বাবা! অশ্বের স্ত্রীলিঙ্গ অশ্বিনী, আবার ব্যাকরণ! [ঘাট হয়েছে!

বিধুমুখী। তুমি ঈশ্বরকে সাক্ষী করে অঙ্গীকার করেছিলে যে, আর কখনো মগ্যপান করবে না আবার ফের মাতাল হয়েছ ?

পূর্ণ। মাতাল! ছেলেবেলায় ব্যাকরণ পড়েছিলেম।__ আ্যা? একটা! সন্ধি করব? মাতাল। মাতা ছিল আল-_ অর্থাৎ যে জিনিসের দ্বারা মাথা আল হয়, রোশ্বাই হয়। আর তাহাই যিনি পান করেন, তিনি কি? না মাতাল, ( ভান্য) হ] হা হাত! হ্য। ডিয়ার, মর খেলে কি কখনো পাপ হয়, স্যানজার কাছে এতদিন লেকচার শুনে কি শেষে এই বিছ্যে হল ?

বিধুমুখা। কি? পাপের উপর পাপ? একটা পাপ করে কোথায় অন্ঠতাপ করবে, নাঁফের পাপ! আমাদের পরমগ্ডরু, পরমপূজনীয়, শ্রদ্ধাস্পদ, ভক্তিভীজন পাপীর গতি শ্রপতিতপাবন সেন মহাশয়কে কিনা তুমি স্যানজা বললে?

পুর্ণ শ্তানজা বললুম এতেও দোষ হল? এইন্তাও ঘাট হয়েছে, আর আমি কথা কব না। (পারব পারিবতন )

বিধুমুধী। আমার কাছে ঘাট হানলে কি হবে ?

পূর্ণ। ঘাট তবে আর কার কাছে মানন? তুমিই তো! আমার সর্বন্থ ধন, তুমি যা বল, আদি তাই শুনি। বললে, সীইজির গির্জেয় যাব, ভ।লে! বললে, বূব্সেনেব ওখানে চা খাব, ভালো তাঁত খাওড। বললে, মেয়েমানুষের স্বাধীনতা আছে, আমি যেখাণে খুশি উডব-_ ভালে! তাই ওড় গিয়ে! আমি কোন্‌ কথাটা শুনি নি বল ছেপি ডিয়ার? ( বিধুমুখীর পদ ধরিয়া ক্রন্দন )

বিধুম্খী। একি ওকি! ছিছিছি! আমাব পায়ে পডলে কি হবে? একবার অনুতাপ কক ভা হলেই পাপ ক্ষয় হবে?

পুর্ণ। অন্তাপ করব 1 হলেই মাপ করবে। তা কেমন করে অন্থতাপ করব?

বিধুমুখী। কেমন করে করবে? উর্ধ্ধদিকে হস্তোতোলন করে ক্রন্দন

রতে করতে বলো, আর এমন কম করব না।

কিঞ্চিৎ জলযোগ

পুর্ণ। ( উর্ধ্বদিকে হস্তোত্তোলন করিতে করিতে ), কৌদল--কি বললে ?

বিধুমুখী। নানা; করজোড করে এইরকম কবে বলো যে, আর "মামি পাপ করব না।

পুর্ণ (ক্রন্দনের ন্তায় স্বর করিয়! ) আর আমি এমন কর্ম করব না।

বিধু। ওঠো এবাব তোমাকে প্রভূ মার্জনা করলেন

রি | ( নেশা] কিঞ্চিং উপশম হওয়ায় স্থগত ) অ।! সাম! বাঁচলেম। কি দেব!

পূর্ণর ত্রন্দন শুনিতে পাইয়! তাহার পুরাতন বৃদ্ধ ভূতা ভেল। দৌডিয়। ঘরের ভিতর আ'সিষ। দেখে পুর্ণ বিধুমুখীর পদতলে

(ভোলা। কি হয়েছে, কি হয়েছে? কানাকাটির সোরু পড়েছে কেন! আমার বাবুরে এই বাইবাঘিনী সাঁবি ফ্যাল্পে! আমার বাবুরে দেখছি কি কবেছে! হয়েছে ! আমাদের শ্তাকালে স্বামীর পাষের ধুলা পালে, ম্যায়েগুলা বর্তায় বাত! এর কি আম্পর্ধ। জগদম্বাবর মতে মৃতি করে দাড়ায়ে রয়েছেন, গ্যাহ না!

বিধু। ( লজ্জিত হইযা) ওকি পায়ের কাছে পডে আছ, এখানে উঠে বস ন1।

ভোলা ঠারণ, তোমীর আক্কেল ভারি! এতক্ষণ আমার বাবুরে পায়ের তলার রাখিছ?

পূর্ন। ( উঠিয়া) আমার সামনে তুই প্রেয়সীকে অপমান করলি। ইউ ইম্পার্টিনেন্ট রেচ্? বিগন! না হলে এখনি তোর ঘুষিয়ে হাড় ভেঙে দেব। যা এখান থেকে

ভোলা (নিকটে গিয়া, পুর্ণবাবুর দাড়ি ধরিয়া) আহা! বাছার মুখখানি কাদি কাদি শুকায়ে গ্যাছে! আহা, ল্যাংটা হয়ে যহন বেড়াতে, তহন ভয় ভোয়! করি আমারে কত ডাকতে, আমার কোল ছাড়ি কোথাও নডতি চাতে না। তোমার ইস্ত্রী কি খাওয়ায়ে ষে তোমারে গুণ করলে, তা বলতি পারি ন1।

পূর্ণ | আবার এখনো! বক্‌্চিস? পাল! এখান থেকে ( মারিতে উদ্যত )

বিধু। থাক্‌ থাক আর বুড়ো মানুষকে মারলে কি হবে। যেতে দেও। বুড়ো পাগলের কথ] ধরতে নেই।

জ্যোতিরিন্্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

ভোলা তোমার ইস্ত্রী যে কি গুণ করলে, তা বলতি পারি না। আহা, সোনার চাদেরে, যেন গোলাম করি রাখেছে। গ্যাহ, ইস্ত্রী আর কুত্তরে নাই দ্যালেই ঘাড়ে চড়ে। স্বাধীনতা স্বাধীনত1! করি যে, কি মন্ত্র তোমার কানে পড়িল, সেই অবধি তোমার ইস্ত্রী তাধিনত1 তাধিনতা করি আপনিও যেহানে- সেহানে নাচি বেড়ায়, তোমারেও নাচায়।

পুর্ণ। চোপ রাও, ইউ ড্যাম ফুল, ফের যদ্দি কথা কবি, তো! এই তলবার দিয়ে-_

তলবার উঠাইয়। ভয় প্রদর্শন ভোল।। বাপ্পুই রে, মলাম রে! [ পলায়ন

পূর্ণ আঁ, বাচা গেল, এমন ইম্পার্টিনেপ্ট চাকর তো! দেখি নি।

বিধুমু্খী। অনেক কেলে পুরাতন ভৃত্য, তোমাকে মান্ষ করেছে, আর বিশেষ শ্বশুর মহাশয় মৃত্াকালে বলে গিয়েছিলেন যে, চাকরটিকে কখনো! ছাড়াবে ন|। এইজন্য ওকে কিছু বলি নে, অন্য ভৃত্য ওরকম বেয়াদবি করলে, তহঙ্গণাৎ্ৎ অ।মি তাকে জুতো! মেরে তাডিব়ে দিতেম |

পুর্ণ। আমাকে কোন্‌ কালে মানুষ করেছিল বলে কি ওর এইসকল বেয়াদবি আমাকে সহা করতে হবে! তুমি তো এরকম নাই দিয়ে দিয়েই ওর বৃদ্ধি বাড়িয়েছ

বিধুমুখী। তা তে। বটেই 1-- যা হোক, যা হয়ে গেছে, হয়ে গেছে; আর কেন? এক্সো এখন তোমার মাতায় একটু জল দিয়ে আনি, তাহলে নেশাটা একেবারে ছুটে যাবে।

পুর্ণ (সচকিত হইয1) নেশা! মাইরি কোন্‌ শালার আর নেশা আছে।

বিধুমুখী! আবাব ধিবিব করছ দিবিব করা ভারি পাঁপ তা! জান?

পুর্ণ। (জিব কাটিয়া) এই (স্বগত) এর লেকচারের জালায় আর বাচিনে। কোনো ছুতো কহে এখান থেকে এখন পালাতে পারলে হয়।

বিধুমুখী। চুপ কবে যেবসে র্টলে? ওঠো না।

পুর্ণ (সভয়ে) এই ধে উঠছি। (উঠিয়া পশ্চাতে পশ্চাতে গমন ) (স্গগত) তুমি এখন জল ঢালতে পর, ঘোল ঢালতে পার, যা খুশি

কিঞ্চিৎ জলযোগ

করতে পার। এখন তোমার একৃতারে আছি বাবা আর একট পরে ামবাজারের কামিনীর কাছে যাব, সেখানে গেলে আর তে]ুমাকে কি ভয়? সেখানে 'গেলে প্রাণটা জুড়োবে [ উভয়ের প্রস্থাৰ

দ্বিতীয় গর্ভাঙ্ক পর্ণবাবুর বৈঠকখানা আর্রমস্তক পূর্ণবাবুকে লইর! বিধুনুখীর প্রবেশ উভয়ের কৌচে উপবেশন

পুর্ণ। আমার দ্র খাওয়াটা অভ্যাস নাই ; আজকের আমার বন্ধুরা ভরি অনুরোধ করে ধরলে, তাই একটু মুখে ঠেকিয়েছিলেম।

বিধুমুখী। (স্বগত ) তা কেমন! (প্রকাশ্তে) য| হয়ে গেছে, হয়ে গেছে। অনুতাপ তো করেছ; আর কেন? আনু যেন কখনো খেয়ো না।

পুর্ণ (স্বগত )অগ্তাপ করিয়েই যে ছেড়ে দিলে, এই ঢের ! ( প্রকাশ্ঠে ) আমি আবার মদ খাব, ইহজন্মে তে আর না। (কিঞ্চিংকাল মৌন থাকিয়। হঠীৎ) হা মাই ডিয়ার, তুমি উডে বেহারাদের কথা তখন কি বলছিলে ? আমার তখন মাথা খুনছিল বলে বুঝতে পারি নি।

বিধুমুখী | আমি তখন বলছিশেম কি-_- যে তোমারই তো দোষ-__

পুর্ণ ( সচকিত হইয়া গত )-- আবার কি দোষ ধরে? যত দোষ নন্দ ঘোষ বিধু। তোমার উড়ে বেহারাদের তুমি তো ছ।ড়াথে না। আজকের মন্দিরের সাভিস হয়ে টয়ে গেলে আমি বেরিয়ে পান্কিতে উঠতে যাই, না দেখি, পাক্কিও নেই, বেহ।রাঁও নেই, কেউ কোথাও নেই অন্ধকার রাত্রি, কি করি, এমন সময়ে আমাদের প্রচারক মহাশয় প্রেমনাথবাবু আমাকে এইরকম অবস্থায় দেখতে পেয়ে বললেন ষে এসো, আমি তোমাকে বাড়িতে পৌছে দেব। আ! আমি তথন বাচলেম, তখন আমার মনে হল যেন প্রত যীশুস্বীষ্ট স্বয়ং এসে আমাকে এই বিপদ-সাগর হতে উদ্ধার করলেন; তাঁর পর তিনি সন্সেহভাবে আমার হস্ত ধারণ করে, আমাদের বাড়ির দরজ! পধন্ত পৌছে দিলেন, তার পর ন্বর্গরীজা সন্িকট” বলে আমার নিকট হতে বিদায় ললেন, আমিও ভক্তিভাবে তার পদতলে প্রণাম করে বাটার মধ্যে ঢুকলেম।

১৩ জ্যোতিরিন্দ্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

পুর্ণ। (স্বগত ) অতি ভক্তি চোরের লক্ষণ! সন্দেহ হচ্ছে, “অন্ধকার রাত্রি।” আবার হস্তধারণ করে (প্রকাশ্যে) কি বিপদ? ভারি খারাপ তো, বোধ হয়, উডে বেহারাঁদের তুমি কি বলে দিয়েছিলে, তা তারা বুঝতে " পারে নি। বিধুমুখী | খুব সম্ভব; উড়েগুণ যে বোকা! বিশেষ যে বেহারাগুণকে রেখেছ, তারা যদি বাঙ্গালার একট! কথা বুঝতে পারে, আর তোমার যেমন বাতিক, কতক গুলে উড়ে ম্যাড। চাকর বেখেছ, কিছুই কথা বোবা! যায় না। পুর্ণ কিন্ত ঘা বল ভিয়ার_- তোমার স্বীকার করতে হবে যে উডেদের মধ্যে ষেমন পান্কি নেহখর। সবেশ। ভু, এমন কোনে জেতে নষ 1 বিধু। তীব সন্দেহ! আব বিশেষ যাঁর গ্রতি মজে মন, কিবা। ইডি কিবা ডোম। (অভিমান স্থানীন্করে উপবেশন ) পুর্ণ মাই ডিয়ার, বলতে কি, এ-সব বিষয়ে তোমারও দোষ আছে। তখন মেই ভোল। চাকরট। যেরকম করে বেয়াদবি করেছিল, তুমি কিছু না বলে, বরৎ তার পোষকত। করলে বিধু। ভোলা। অবশ্য আমি তার হয়ে বলব। তোমার কি? আমি যদ্দি তার কথ! সহা করতে পারি সেকত দিনকার পুরনো চাকর, ত] জান, তার কথা কি ধরতে আছে ? পুর্ণ। ত] যেন হল-- তাই বলে তার বেয়াদবি সহা করতে হবে ? বিধুমুখী। উডে বেহারাদের কিছু দোব নেই, আর ভোলারই ধত দোষ হল। আমি ভোলাকে অবশ্য রাখব, তোমার কি? পুর্ণ। (স্বগত) আর পারা যায় না, এইবার একট্র চটিয়ে দিয়ে হ্টামবাজারে যাবার ফিকির দেখা যাক, (প্রকাশে) আচ্ছা! বেশ, তুমি ভোলাকে রাখ, আমিও উডে বেহারাদের অবশ্ত রাখব। (বিধুর হাই তুলন -_ পুর্ণ উঠিয়া বস্থ পরিবতন করত বিধুর নিকট গমন ) বিধুমুখী। ( পুর্ণকে ধরিয়া) বুঝেছি ! বুঝেছি ! তোমার শ্টামবাঁজারের সেই লোকটির কাছে যাচ্ছ, সেখানে প্রায় তুমি তো! বোজই যাচ্ছ, তবুকি তোমার আশ মেটে না? " পুর্ণ। একজন মানুষ মরছে, তাকে আমি দেখতে যাব না? এই কি তোমার ধর্ম হল, আর রোজ রোজ সেখানে কবে যেতে দেখলে ডিয়ার ?

কিঞ্চিৎ জলযোগ ১১

বিধু। (অভিমানভরে ) তুমি এখনই সেখানে যাও। আর আমি ধরে রাখব না। পাপ করলে ঈখরের কাছে তুমিই দায়ী হবে। আমার কি? আর বিশেষ তিন চারি বৎসর ধরে যে মেয়েমানষের সঙ্গে ভাব, তাকে যে এখন তখন দেখতে ইচ্ছে হবে তাতেই বা আশ্চর্য কি?

পূর্ণ। (টুপি পুনর্বার টেবিলের উপর রাখিয়া বিধুর নিকট ঘেঁষিয়া বসিয়া ) মাই ডিয়ার তুমি বেশ জানবে, যে আমি তোমা ভিন্ন আর কাকেও ভালোবাসি নে!

বিধু। তবে তোমার মতন ভয়ানক মিথ্বাদী আর ছুনিষায় নেই। এামবাজারের কামিনীর উপর তে মীর ষেআসক্তি ছিল, ত1 এমন-কি আমাদের বিষ্বে হবার আগে লৌকে বলাবলি করত যা হোক, আমি গত বিষয়ের জন্য ভি নে, এখন কেবল আমার এই মনে হয় যে আমাকে বিয়ে না করে যদি তাকে বিয়ে করতে, তা হলে তোমার পক্ষেও ভ|লো হত, ঠার পক্ষেও ভালো! হত।

পুর্ণ। এরকম ভাবনা তোমার অন্রচিত ডিয়ার; এসো এসো, আর কেন?

বিধু। কেন কেন? যাঁও না, তার কাছে যাও না। অমন জ্ন্দরীকে ফেলে তোমার কি এখানে থাকা উচিত ? যাও না, মিছে কেন দেরি করছ ?

পুর্ণ | তবে আমার উপর তোমাব বিশ্বাস নেই ?

বিধু। (উঠিয়া) বিশ্বাস! আমি জেনে শুনে তোমার ফাদে পড়তে চাই নে, এই আমার অপরাধ

পুর্ণ। ( উঠিয়া) ও! সন্দেহট1 কি ভয়ানক জিনিস। বিষয়ে তোমার সঙ্গে আমার এক্য হয় না ভিয়ার।-- এই মনে কর নাকেন, আমি যদি দেখতে পাই একজন বেগানা লোক এসে তোমার পায়ে পডে আছে, তা হলে আমার হঠাৎ মনে কি হয়? আমার তো মনে আর কিছু হয় না আমার মনে হয় বুঝি একজন মুচি এসে তোমার পায়ের জুতোর মাঁপ

1

বিধু। €হাস্ত সম্বরণ করিতে না পারিয়া ) হা হা হা! বেশ যা হোক!

পুর্ণ। না নাঠাষ্টা! নয়, বাস্তবিক আমার মনে কোনে! কুসন্দেহ প্রায়ই” উপস্থিত হয় না।

১২ জ্যোতিরিক্নাথের নাট্যসংগ্রহ

বিধু। (নিকটে গিয়া) দেখ! মেয়েমানুষকে ঘেঁটিও না। কখনো €তামীর সন্দেহ হয় না ?

পূর্ণ। কখনো না। আমার স্বভাবই ওরকম না, তা তুমি বললে কি হবে? ত। কেন-_- দেদিন নাচ দেখতে গিয়েছি, আমি যে কাছে আছি, তা দেখতে পায় নি- একজন লোক আর-একজন লোকের কাছে বলছে যে, প্রেমবাবু সমস্ত ছুপর বেলা টা বিধুমুখীর ওখানে কাটিয়ে এসেছে।

বিধু। যদিও বা তিনি আম।র সঙ্গে সমস্ত দ্রিনট। কাটিয়ে থাকেন-_ তাতেই ব। দোযট। কি? তিনি হচ্ছেন, আমাদের একজন প্রধান প্রচারক-_ ুঁরুলোক

পুর্ণ | (তাড়াতাড়ি) তাই তো, আমিও তো| তাই মনে করি লোকে যেরকম গ্রেমনাথবাবুর বর্ণনা করে-_ দেখতে স্ুশ্রী-_ বেশ মিষ্টি মিষ্টি কথা তাতে অন্য লোকের কথা শুনলে হঠাৎ ভয় হতে পারে বটে-_- কিন্তু কথ! যখন আমার কানে এল, তখন তো! আমার কিছুই মনে হল না এমন- কি যদি তুমি এই বিষম আগে না পাড়তে, তা হলে আমি যে কিছু কথা শুনেছিলেম আমার তীও মনে আসত না

বিধু। (উঠ্িয়। টেবিলের নিকট গমন ) আহা! তাই তো গা, আমার উপর তোমার কি অটল প্রেম?

পুর্ণ। মাহ ডিয়ার, তুমি বেশ জেনে রেখো যে, সন্দেহ করার চেয়ে পাগলামি আব জগতে কিছুই নেই। এই যে সন্দেহট।, যে প্রথমে স্থজন করেছিল, সে পিশ্চয় তার নিকট হতে ভালোবাসা পায় নি-_ না পেয়ে অন্যেবও ভালোবাপাতে যাতে বাগ্ডা পড়ে, এই তাঁর চেষ্টা হল '

বিধু। মুখে মধু_ জদে ক্ষব! যাও যাও, আর তোমাকে আমায় বোঝাতে হবে না।

পুর্ণ বাস্তবিক আমল মুন কখনো! সন্দেহ হয় না।

বিধু। যাও যাঞ্ড, আর মিছে দেখি কর কেন? শ্যামবাজারে গিয়ে আমোদ করোগে।

পুর্ণ তবে নিতান্তই দেখছি তুমি আমাকে তাড়াবে ; আমি গেলেই যেন তুমি বাচ? (যাইতে যাইতে ডি খুলিয়া দর্শন) ও! অনেক রাত্তি

কিঞ্চিৎ জলযোগ ১৩

হয়েছে, রোগীট1 মল কি বাঁচল, কিছুই বলতে পারি নে। এলেম বলে ডিয়ার -রাগ টাগ কোরো না। [ পূর্ণর পরে বিধুমুখীর প্রস্থান

তৃতীয় গর্ভাঙ্ক পূর্ণবাবুর বৈঠকখান। বিধুমুখীর প্রবেশ

বিধুমুখী। যা হোক্‌, এত যে জারি জুরি করলেন, এখন আমায় একবার দেখতে হবে যে, আমার উপর গুর বাস্তবিক সন্দেহ হয় কি না? গহনাপগ্তণ এই টেবিলের উপর থাক। (ঘবে সংক্রমণ করিতে করিতে আয়নার নিকট গমন ) বাস্তবিক কি আমি দেখতে এত খারাব, যে, আমাকে তার মনে ধরে না। আঃ-_ পুরুষ জাতিটাই খারাব! সবাই সমান; রোসো! আজকের একটু সাজ গোজ. করা যাক্‌, সারারাতটাই এইরকম করে কাটানো যাক্‌। শুধু উপদেশ দিয়ে আর কিছু হয় না।__ গালে একটু আলতা দি, খোপায় এক ছড়া মালা দি, পান খেয়ে ঠোট লাল করি! এই রকম না করলে আর মন পাওয়া যায় না। তিনি এতক্ষণে বেরিয়ে গেছেন কি ন! বলতে পারি নে (পুর্ণর ঘরের কাছে গিয়া কর্ণপাত ) কিছুই তে। শোন যায় না।

বাইরে যাইবার পথ খুঁজে না পাওয়ায় ঘুরে ফিরে এই ঘরে পুনরায় পেরুরামের প্রবেশ

পেরুরাম। সকল দরজাগুলোই বন্দ, বাড়িট৷ প্রকৃত গোলকধাধার তো দেখছি; একবার ঢুকলে আর বেরোবার যো নেই। এই বাড়ি থেকে এত করে পলাবার চেষ্টা করছি, কিছুতেই তে পেরে উঠছি নে।-_ প্রথমে যে ঘরে এসেছিলেম, আবার দেখি সেই ঘরেই এসে পড়েছি !

বিধু। (দীর্ঘনিঃশ্বাস ত্যাগ করিয়া) যাই আমার ঘরে গিয়ে শুইগে। (গহনা লইবার নিমিত্ত টেবিলের দিকে গমন পেরুরামের সহিত হঠাৎ সাক্ষাৎ) ওমা! গো! (ভয়ে থমকিয়৷ দণ্ডায়মান )

১৪ জ্যোতিরিক্্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

পেরু। আয! (ভয়ে তটস্থ)মা ঠাক্রন! (স্বগত)বা! বা! কি চেহারা!

বিধুমণী। (ন্বগত) নিশ্চয় চোর-_ তাতে আবার আমি এখানে একলা। (টেবিলের চতুষ্পার্থে ধাবমান )

পেরুরাম। (বিধুর নিকটে গিয়া ) আমি দেখছিলেম __

বিধুমুখী। (ভাঙা ভাঙ। গলায়) এই নে বাপু_ এই মুক্ত, এই হীরে, এইসব নে-_ কেবল আমাকে প্রাণে মারিস নে !

পেরুরাম। বেয়াবি মাপ করবেন, আমাকে ঠিক ঠাওরাতে পারেন নি। (বুঝাইয়। বণিবার নিগিত্ত নিধুর নিকটে গমন )

বিধু। (রঙ্গস্থলের অপর পার্খে দৌড়িয়া গিয়া) তোর পায়ে পড়ি বাপু -এইসব নে' তোর দলবল নিয়ে চলে যা! সব নে, আমাকে প্রাণে মারিস নে।

পেরুরাম। (অত্যন্ত ভীত হইয়া বিধুর পশ্চাতে গমন তাহাকে তার বাস্তবিক অবস্তা বুঝাউবার নিমিত্ত নানা প্রকার চেষ্টা) দলবল, মা ঠ।কুরন ? আমার দলবল নেই আমি একলা, আমার কেউ নেই , আমি অতি দুঃখী বেচাব।! পথ ভূলে এই বাড়িতে এসে পড়েছি !

বিধুমুখী। পথ হুলে এই বাড়িতে এসে পড়েছ, তার মানে কি? কে তুই ? কোথায় থাকিস? রাত্রে কি সাহসে এখানে এলি?

পেকরুরাম। অদৃষ্ট! অপৃষ্ট! ঠাক্রন , আমার বাড়িওয়ালার যত দোষ

বির তোথার বাড়িওয়।ল।। ( পেরুর অগ্রসর বিধুর পশ্চাদগমন )

পেরু। ঠাকৃরন' মামি চোব নই, আমি যে নির্দোধী তার কি প্রমাণ দেব?

বিপু যদি তুই

পেরু। আমাকে ঘদি বলতে পেন, তা হলে আমি সব খুলে বলি।

বিধু। (স্বগত ) লোকট। কিছু বোক? বোকা রকম দেখছি! এতে একটু সাহস হচ্ছে! . প্রকান্ছে ) আচ্ছা বল্‌, দেখি কেমন করে এখানে এলি

পেরু। পান্কি চডে ঠাঁক্বন ! বেশ পান্কিধানি !

বিধুমুখী। পাক্কিতে ?

কিঞ্চিং জলযোগ ১৫

পেরুরাম। মিরজাপুরের গিজের সামনে একটা পান্কি ছিল, সেই পান্কিতে চড়ে এই বাড়িতে এসেছি

বিধু। ও! আমার সেই পাক্কিতে? তুই কি রকমে তার ভিতর ঢুকলি?

পেরু। কেমন করে ঢুকলেম? (স্থগত) বেড়ে চেহারা! ঠিক সত্যিটা বল! হবে না সব কথা খুলে বললে পাছে আমাকে নীচ ঠাওরায়। ( প্রকাশ্তে ) কোনে বিশেষ কারণ জন্ত--- কোনো বিশেষ লোকের হাত হতে আমার এড়াতে হল-

বিধু। তার পর?

পেরু নিবেদন করছি! আমাকে কথাট? সমস্ত বলতে দিন। তার পর সেই লোকটা আমার পিছনে পিছনে তাড়া করাতে পলাবার আর অন্য উপাক্ না দেখে__ একটা পাক্কি সামনে পেয়েই, তার দরজাটা খুলে ফেললুম। তার পর পান্কির মধ্যে টুকে মনে করলেম, আর-এক দিক দিয়ে নেবে পডব-_- ন। হঠাৎ বেয়ারাগুণ পাক্কির দরজ1 খোলবার শব্দ শুনতে পেয়ে, পাক্ছিট। কাদে করে নিয়ে, বো বৌ করে দৌডল।_ আমি এত বলি থাম্‌ থাম্‌, কিছুতেই থামল না।

বিধুমুখী। (হাস্য সম্ধরণ করিতে ন। পারিয় মুখে রুধাল প্রদান) হ্য। হ্যা বুঝেছি-__ কিরকম ব্যাপারট। হয়েছিল

পেরুরাম। (স্বগত) বা! বেশ মেয়েমানগষ! বুঝেছে কিরকম ব্যাপারট। হয়েছিল বা! চমত্কার মেয়েমানুষ!

বিধুমুখী। আঃ উড়েবেয়ারাগুণ__

পেরুরাম। উড়ে বটে, ঠিক; আমিও তাই ঠাউরেছিলেম। (বিধুর কাছে যাইয়া) আমি চোর নই। এখন ঠাক্রন, ইচ্ছা হয় তে সব খুঁজে দেখুন-- এই কাপড় ঝাড় দিচ্ছি। (কাপড ঝাড়! দিতে উদ্যত )

বিধুমুখী। (হাসিয়া ) না নানা আর কাপড় ঝাড়া দিতে হবে নাঁ_ তুমি যা বলছ, তা আমি অবিশ্বাস করছি নে।

পেরুরাম। তবে ঠাকৃুরন, তা যদ্রি হয় আমার উপর আর কোনে! সন্দেহ ন1 থাকে যদি-_- (স্বগত ) এমন সুখের আলাপ ভঙ্গ দিতেও ইচ্ছ' হয় না। (ঘড়ির দিকে দৃষ্টিপাত করিয়া) ( প্রকাশ্টে ) এখন বোধ হচ্ছে প্রায়

১৬ জ্যোতিরিন্্নাথের নাট্যসংগ্রহ

ছুটে! বাজে, আর থাকাট1 ভালো হয় না অনুগ্রহ করে যদি যাবার পথটা দেখিয়ে দেন। বিধুম্খী। (ঘড়ির নিকটে গিয়!) ছুটে বেজেছে। তাই তো, একজন চাকরকে তবে ডাকি; (চাকরকে ডাকিবার জন্ত দ্বারের নিকট গমন কি ভাবিয়। পুনধীর প্রত্যাবর্তন ) চাকর এলেই বা মীথামুণ্ড তাকে কি বলব? তাই তে। যে ভাঁবি মুশকিল দেখছি ! তুমি আমাকে ভারি বিপদে ফেললে! এই ছুটো রাতে একাকী একজন বেগান! পুরুষের সঙ্গে রয়েছি, চাকরের। দেখে কি মনে করবে; ভারি বিপদ বটে পেরুরাম। তবে ঠাকবন এমন একটা উপায় বলে দ্বিন, যাতে করে আমি এই বাড়ি থেকে বেবিম্ে যেতে পারি, অথচ আমাকে কেউ দেখতে না পায়। বিধুমুখী। আর তো কোনে। উপায় দেখি নে, তবে যদি গবাক্ষ দিয়ে ?-- পেরু। (ন। বুঝিতে পারায়) কি বললেন ঠাক্রন? ক-ক-ক অক্ষ দিয়ে? বিধুমুখী। (ন্বগত) তোমার পেটে অক্ষর গো মাংসই বটে ! (প্রকাশ্তে ) ন। না না, আমি বলছি, এই গবাক্ষ অর্থাৎ জানল] দিয়ে যা এক পালাবার পথ আছে। প্রু। জানল।? (জানলার কাছে গিয়া ভালে করিয়া নিরীক্ষণ জানল। খুলিয়। বাহিরে দৃষ্টি) বাবা যেউচু! আমার কর্ধ নয়__- শেষে কি জানটা খোয়াব ? বিধুমুখী তবে আর উপায় নেই ; আর এই তে] দোতালা বৈ তো নয়; _-এখান থেকে ্বচ্ছন্দে_ পেরু (ন্বগত ) বাবা যে দেখছি পুরুষের ঘাড়ে হাগে! দোতা।ল। বৈতে। নয়! (প্রকাশে) গোলামকে হাপ করবেন, আমার লাফানোট। বডো এসে না; কিন্তু লম্ফট! শিখতে আতোোস্তিক বাসনা আছে এখন নাকি শুনতে পাই যে লাফাতে পারে, সেই ডিপুটা মাজিন্টেটের পদ পায়। আর যি কোনো কর্ম না জোটে, ঠাক্রন। তাহলে দেখছি, সেই এক কালে লাফাতে হবে ।--

কিঞিৎ জলযোগ ১৭

বিধুমুখী। এখন ম্যাল! ফালতো বকলে কি হবে? হয় এই জানলা দিয়ে লাফিয়ে পড়ে, না হয় তে] দেখছি বন্দকের গুলি খেয়ে প্রাণট? ষাবে।

পেরু বন্দুক? বাবারে! (শ্বগত) যে মেয়েমাহ্ষ, বলে কিনা “দোতালা! বৈ তো নয়,» তার অসাধ্য কিছুই নেই-_- (প্রকাশ্টে ) মা ঠাক্রন ! পায়ে পড়ি, আমাকে মেরে? না আমি তোমীর পায়ের গোলাম

বিধুমুখী আমি মেয়েমান্ষ, আমি তোমাকে মারতে যাচ্ছি নে__ তবে কিনা! আমার স্বামী ভারি-__

পেরু। (ম্বগত ) বাবা! আবার শ্বামী আছে নাকি ?-- (প্রকাশ্যে ব্যতিব্যস্ত হইয়া সকাতরে ) একটা পথ আমাকে দেখিয়ে দেও মাঠাক্রন তোমার পায়ে পড়ি-__ আর এমন কর্ন কখনে। করব না। (++

বিধুমুপী গবাক্ষ ভিন্ন আর কোনে। উপায় নেই |

পেরু (নিরাশ হইয়। ) আচ্ছা! একবার চেষ্টা করে দ্রেখা ধাক। ( লম্ফ- ঝম্ফ ) নাঁব1। প্রথমে লাফিয়ে জানলাটার উপর উঠতে হবে, তার পর আবার জানল! থেকে নীচে লাফিয়ে পড়তে হবে; আমার কর্ম নয়; লাফিয়ে যদি জানলাম উঠতে যাই, তা হলে নিশ্চয় পডে যাব আর জানলে মাঠাকরন। আমার একটা ভারি বদরোগ আছে, শরীরে আমার একটু ব্যথা সয় না; ভারি স্থুখী শরীর , যদি একটু কোথাও লাগে তা হলে আমি এমনি চীৎকার করে উঠব, যে, বাড়িশুদ্ধ লোক জেগে পড়বে র্

বিধুমুখী | তা! বটে, তবে শীঘ্র জানলাটা বন্দ করে দেও। |

( পেরু জানলা বন্দ করিতে গিয়া! অঙ্গুলি চিম্টিয়। যাওন ব্যথা প্রযুক্ত নান। প্রকার অঙ্গভঙ্গি চিৎকার করিতে উদ্যত )

বিধুমুখী। (পেরুর প্রতি) চুপ্‌ চুপ! (ম্বগত) এইবার দেখছি বাড়িশ্ুদ্ধ জাগালে, আ! কি আপদেই পড়েছি! পাপকে কিরকম করে বিদায় করি? আর একট] কোনো উপায় ঠাওরানে। যাক ( সংক্রমণ চিন্ত। করিতে করিতে ) আর তে1 কোনে উপায় দেখি নে, তবে আমার স্বামীকে পষ্টাপষ্টি বল! যাক না কেন যে, এইরকম ঘটন। হয়েছে ; সত্য কথাই ভালে।। আর এতে কোনে! ভয় নেই, কারণ তিনি আমাকে সারাদিনই বলেন যে, তার কিছুমাত্র আমার উপর সন্দেহ হয় না ( পুর্ণবাবুর ঘরের দরজার কাছে

গিয়া) ওগো ওগো! (চিন্তা করিয়া) না না না না, একটা কথা মনে বৃ

১৮ জ্যোতিরিক্ত্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

প্রড়েছে। তখন আমাকে তিনি আমাদের প্রচারক মহাশয় প্রেমনাথবাবুর কথা বলেছিলেন-_ ভালে? একেই প্রেমবাবু বলে চালালে হয় না? হাহা এই বেশ কথা ( পেরুরামকে নিরীক্ষণ ) পেরু | (শ্বগত হাই তুলিয়া) আজ অদৃষ্টেকি আছে, বলা যায় না; গণৎকার বেটার মুখে আগুন। এত কর্মভোগও ছিল! প্রায় তো আড়াইটে হয়েছে, আ! এতক্ষণ কামিনীর বাড়িতে দিব্যি করে নিদ্রা যেতেম ! বিধুমুখী। (স্বগত ) তিনি ঘে বড়ো বলেন, তার মোটেই সন্দেহ হয় না। ভালো, তাকে একবার পরীক্ষা করে দেখতে হবে। কেমন তার সন্দেহ হয় না, ( গ্রকাশ্থ্ে পেকুরামের প্রতি ) দেখো, আমি একটা উপায় ঠাওরেছি। পেরু (ব্যস্তসমস্ত হইয়া ) ঠাওরেছেন? বেশ, কোন্‌ দিক দিয়ে যেতে হবে? (যাইবার পথ অন্বেষণ ) বিধুমুখী। ( একট] চৌকি দেখাইয়া) না না না, এইখানে বোসো 1 এই চৌকিতে পেরু (আশ্চর্য হইয়া) এইখানে বসব ? বিধুমুখী। হ1! (বিধুর কৌচে উপবেশন পেরুরামের চৌকিতে আলগোচে আড়ষ্ট হইয়! উপবেশন ) পুর্বে তুমি কি কাজ কতে? পেরু। ঠাক্রন, এককালে আমি মস্ত কাজ করেছি-- আফিসের কেরানী ছিলেম। বিধুমুখী। আমার একজন সরকার চাই, বোধ করি, তুমি সরকারের কর্ম করতে পারবে ? পেরু। সরকার ? বিধুমুখী। মাসে আডাই টাক আর খাওগা-পরা। পেরু ( উঠিয়া!) মাসে আড়াই টাকা। আবার খাওয়া-পর। | আমার এই ঢের! আজকালের বাজারে এই বা পায় কে? কত বি. এ. এম. এ, কাজের জন্ হিমসিম্‌ খেয়ে যাচ্ছে ! বিধুমুখী। তবে তুমি এতে রাজি হলে? পেরু ( পুনক্ুপবেশন করিয়া ) তাতে আর সন্দেহ নেই। বিধুমখী। তবে তো একরকম সমস্তই ঠিক হল-_ তোমার এখন নামট। জানতে হবে ষে? রঃ

কিঞ্চিৎ জলযোগ ১৯

পেরু (উঠিয়া জোড় হস্তে বিনীতভাবে) আজ্ঞে, আমার নাম পেরুরাম।

বিধুমুখী। (হাসিয়া) ওকি বিচ্ছিরি নাম? ওন।ম বদলালে তোমার কোনো ক্ষতি আছে?

পেরু আজ্জে কিছুমাত্র না। নামে কি এপেযায়? আপনি গোল!মকে যা আজ্ঞা করবেন, তাতেই রাজি আছি!

বিধুমুখী। প্রেমনাথ কেমন নাম?

পেরু প্রেমনাথ। বা! এমন সরেশ নাম তে। আমি কখনে। শুনি নি।

বিধুমুখী। তবে নাম তোমার হল। (বিধু উঠিল, পেরুও উঠিয়া অন্মনস্ক হইয়া “আড়াই টাকা” ইত্যাদি অন্থুলিতে গণন1। ইতিপুর্বে বিধুমুখী ত।র স্বামীকে তার নিজ কামরায় আসিয়া অলক্ষিতভাবে শুইতে দেখিয়া তার মনে সন্দেহ উৎপাদন করিবার নিমিত্ত উচ্চৈঃন্যরে পেকরামকে লক্ষ্য করিয়া ) প্রেমনাথবাবু! প্রেমনাথবাবু! [কঞ্চিৎ জলযোগ করবেন ?

পেরু। (প্রথমে অন্তমনস্ক প্রযুক্ত শুনিতে না পাওয়ায়) আজ্ছে! গোলামকে বলছেন? জলযোগ? জলযোগট হলে ভালে হয় বটে! ক্ষুধাটাও আত্যেত্তিক প্রবল হয়েছে! ( স্বগত ) আর পেটে খেলে তো পিঠেও সয়। এখন জানল] থেকে পড়তে হয়, কি স্বামী বেটার বন্দুকেই মারা পড়তে হয়, তার তে। কিছুই ঠিক নেই

বিধুমুখী। (স্বগত ) আমার স্বামী ঘরে এসে আস্তে আস্তে শুয়েছেন, তা আমি টের পেয়েছি! এত চেচিয়ে প্রেমনাথবাবু প্রেমনাথধাবু করে ভাকছি, তবু যে তার মনে কোনো সন্দেহ হচ্ছে না? রোসো, ভোলাকে এর জন্য জলখাবার আনতে বলে দি। ভোলা! ভোলা!

ঘুমের ঘোর চক্ষু রগড়াইতে রগড়াইতে ভোলার প্রবেশ

ভোলা] ঠারন, আমায় ডায়েছেন ?

বিধুমুখী। ভোল।!

ভোলা। ঠারন।

বিধুমুখী। কিছু জলখাবার নিয়ে এসো! তো!

ভোলা আজ্ঞে! ( পেরুরামকে দেখিয়া অবাক হইয়া [কঞ্চিংকাল দণ্ডায়মান ) (স্বগত ) রাতির ব্যালা৷ আবার একটা কারে জোটায়ে

২০ জ্যোতিরিক্জনাথের নাট্যসংগ্রহ

আনেছে! আমার বাবুরে যে কি গুণ করেছে, তা বলতে পারি নে--সে ্াহেও গ্যাহবে না শোনেও শোনবে না। বিধুমুখী। জলখাবার নিয়ে এসোগে না! আবার ্রাড়িয়ে রইলে কেন?

ভোলা এই যাই [ ত্যক্ত হইয়। ভোলার প্রস্থান

পেরু (স্থগত ) আ। এখন খেয়ে বীচব-- সমস্ত দিনটা আজ পেটে অন্ন পড়ে নি! (পুর্ণনীবু এই সময়ে দ্বারের নিকট আগমন পেরুরামকে দেখিয়। থমকিম। দণ্ডায়মীন__ পরে মশাঁরির পিছনে লুক্কায়িত হইলেন )-

বিধুমুখী। ( পূর্ণকে দেখিতে পাইয়া আহলাদে স্বগত ) এই যে, উনি আড়াল থেকে শুনছেন! (চৌকিতে বসিতে পেরুকে ইশারা আপনিও কৌচে উপবেশন। পেরুব প্রেমে বিধুমুখী পড়িয়াছে মনে করিয়া পেরুর নানাপ্রকার ভাবভঙ্গী ), এইবার খুব চেঁচিয়ে এর সঙ্গে কথা কওয়া! যাক ( প্রকাশ্টে ) প্রেমধাবু! সেদিন মন্দিরে ডাগ্যি তোমার সঙ্গে দেখা হয়েছিল।

পেরু (কিছু বুঝিতে না পারিয়া স্বগগত ) মন্দিরে আবার এর সঙ্গে কোথায় দেখা হল? কালীঘাটের মন্দিৰে সেদিন গিয়েছিল নাঁকি ?

বিধুমুখী। যা হোক্‌, এখন ধর্মপ্রচারট1 কেমন চলছে ?

পেরু। (কিছু বুঝিতে ন। পারিয়। স্থগিত) ও! ধর্ম তলার বাজারের কথা বুঝি বলছে! ( প্রকাশ্তে ) ধর্মতলার বাজার এখন খুব গুলজার

বিধুদুখী। (স্বগত) না না, এ-সব বিষয়ে আর এর সঙ্গে কথ! কয়ে কাজ নেই-_ যদি এক চুপ করে থাকে, তা হলে না হয় ওকে আমাদের প্রচারক প্রেমনাথবাবু বলে একরকম দাড় করাতে পারি। কিন্তু যে- রকম উত্তর দিচ্ছে, তা শুনে পাছে তিনি আর কিছু ঠাওরান। যাতে তার মনে সন্দেহ হয়, এমন কোনে! কথাবাতা কওয়া যাক (প্রকাশ্যে ) ভারতী শ্রম, কি চমংকার জায়গা। সেখানে বেশ দুজনে স্থখে থাক। যাবে

পেরু (€ আশ্চধ হইয়া) ভারতবর্ষ চমৎকাব জায়গা আমি সেখানে একবার গিয়েছিলেম-_ কথা বললেন না_ অমন জায়গা আর দ্বিতীয় নেই।

বিধুমুখী। মিষ্টালাপে সময়ট। কেমন স্থখে অতিবাহিত হয়

পেরুরাম (কিছু বুঝিতে না পারিয়া স্বগত )-- ও! মিষ্টান্ের কথা

কিঞ্চিৎ জলযোগ ২১

বলছে বুঝি! এখন যে মিষ্টান্ন এলে হয়__ পেটট। ক্ষিদেতে চো চো কচ্ছে।

বিধুমুখী। আচ্ছা, একটা ব্রহ্মসঙ্গীত গাও দেখি ?

পেরুরাম। (স্বগত )বাঃ? মেয়েমীনুষট। খুব রসিক দেখছি, আবার গাইতে বলে! আচ্ছা, একট। গাচ্ছি।

গান সিঙ্কু-ভৈরবী প্রাণ তুমি কার হবে আমি যদি মুদ্দি আখি। অকৃতী সন্তান বলে আমারে দিও না ফাকি বিধুমুখী ( লজ্জিত হইয়া ) থাক, থাক, আর কাজ নেই। পেরুরাম। (স্বগত ) ও! বুঝিছি, শ্ামা-বিষয়ক গান বলে এর মনে ধরণ না। মেয়েমানুষট1 খুব রসিক না কি, তাই একটা রসের গান শুনতে চায়। (প্রকাশ্তটে) আর একটা ভালে। দেখে গাব ? বিধুমুখী। আচ্ছা, এবার একট1 ভালে গান গাঁও পেরুরাম। আচ্ছা ভৈরবী কালাচাদ বাতাস কর গরখিতে মরি, গরমিতে মরি কালাাদ গরমিতে মরি বিধু। থাক্‌ থাক আর কাজ নেই (পুর্ণর মশারি নডিতে দেখিয়া _-স্বগত ) এইবার বোধ হচ্ছে, গুর মনটা একটু চঞ্চল হয়েছে যাহোক, আমিও তে। আর হাসি রাখতে পারছি নে। (প্রকাশ্যে পেরুর, প্রতি ) আমি চাকরটাকে জলযোগের তাড়া দিয়ে আসমি-_ আমি এলেম বলে পেরুরাম। আঃ! তা আর আমার কাছে বলতে হবে না, তে। ঘরের কথা বিধু। আমি এলেম বলে। (স্বগত ) একটু হেসে আসিগে ; দমটা ফেটে যাচ্ছে। [ বিধুমুখীর প্রস্থান পেরুরাম। খাস। মেয়েমান্ষ বটে। কেবল ভারতবর্ষের কথা আর ধর্মতলার বাজারের কথা! কেন বললে আমি কিছুই বুঝতে পারলেম না। ( পেরুর কৌচে আয়েস করিয়] উপবেশন )

২২ জ্যোতিরিন্ত্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

মান ব্যাফুলভাবে পূর্ণবাবুর প্রবেশ পুর্ণ। (স্বগত ) দেখছি বড়ো বেশি বাড়াবাড়ি! যাহোক, ষতদূর স্থিরভাবে থাকতে পারি, তার চেষ্টা করতে হবে। পেরু ( সম্মুখে পুর্বাবুকে দণ্ীয়মান দেখিয়া) আরে মর, বেটা আবার কে এল? ( উখান) পুর আঠি / পেরু! আমি? আমি কে? পূর্ণ। তুই বেট! আমার জায়গায় কি করে এসে ভন্তি হলি? পেরু। (শ্থগত) ওঁর জায়গাই বটে! ও, বুঝেছি, বেটা বাড়ির পুরনো সরকার-_ যাঁর জায়গায় ঠাকরুণ আমাকে বাহাল করেছেন-_ নিশ্চয় সেই বেটা! পূর্ণ আমার কথার উত্তর দিচ্ছিস নে যে বডে1? পেরু যাযা। তোর আপনার চরকায় তেল দিগে যা! আমাকে ত্যক্ত করতে এসেছে জলখাবার লইয়] ভোলার প্রবেশ ূর্ণ। (পেরুর প্রতি) হারামজাদা ভণ্ড কোথাকারে। ছুপুর রাত্রে এখানে প্রচার করতে এসেছেন-_ প্রচার কববার আর জায়গা! পেলেন ন1। ( ভোলার প্রতি ) সব কি? ভোল1। জলখাবার পূর্ণ, আমার জন্যে? ভোলা এর জন্যে পুর্ণ। ওর জন্ত জলখাবার ! নিয়ে যা এখাঁন থেকে। ভোলা। ঠারন আমায় আনতি বললেন পূর্ণ। আমার কথা শুন্ছিস নে? ভোলা ( আশ্চ্য হইয়া ) আযাহন কাব কথা শুনি ম্যানে ! [ অত্যন্ত চটিয়! ভোলার প্রস্থান পেরু। আমার জন্ক জলখাবার এল, উনি নিয়ে যেতে বলছেন! কি

স্বখ! আমার যদি তোর দশা হত, তা হলে তো আমি এত গুলি কত্তেম না। «

কিঞ্কিং জলযোগ ইও

ভোলা। একট কর্ণ থেকে ছেড়ে যাওয়া কষ্ট টে; কিন্তু তোরই কি একলা কর্ম গেছে-- পৃথিবীতে কি আর কারো! কর্ম যায় নি, না যাবে না? তুই যদি এখন কর্মের যুগ্যি না হোস্‌, সে তে1 আর আমার দোব না।

পুর্ণ। যুগ্যি না হোস! তার মানে কি বে বেটা?

পেরু। মানে! মানে এই যে, গিত্নী তোকে আর পছন্দ করে ন1। মানে আবার কি হবে? মেয়েমাছষের মন তো! জানিস-- কান প্রতি কখন সদয় হয়, তার কি কিছু ঠিকানা আছে? আবার দ্বিন কতক পরে আম।র উপরেও এরকম হতে বা আটক কি?

পুর্ণ। তুই মনে করিস্‌নে, আমি এইসকল কথা সহা করে থাকব।

পেরু আরে বাপু-_ তুই করবি কি? আর কি কোনো চারা আছে'। মাইনেট। হাতে চুকিয়ে দিলেই ধির্‌ ধির্‌ করে চলে যেতে হবে !

পুর্ণ। বেট। পাগল নাকি?

পেরু তা বলবার যে! নেই বাবা! পাগল হলে গিন্নীর মনে ধনত না!

পুর্ণ। আরে ন্তাকাম রেখে ছ্যাও! ছোটোলোকের মতে। কথাগুলে' ছেড়ে গ্যাও! ওতে আমি ভূলি নে! ইদ্দিকে, প্রচার করবার সময় কেমন মস্ত মন্ত সংস্কৃত কথা! আবার এখন ন্যাকাম দেখ না! (স্বগত ) নিশ্চয় সেই প্রেমনাথবাবু_ আমি তখন আডাল থেকে শুনছিলেম, কি প্রচারের কথা হচ্ছিল

পেরু। ওরে বেটা, আমি ছোটোলোকের মতো কথা কচ্ছি! তুই বেটা ছোটোলোক।

পুর্ণ। কি বলব, আমার হাতে এখন চাবুক নেই, না হলে তোকে একবার দেখিয়ে দ্িতেম !

পেরু ( ভয়ে স্থানান্তরে উঠিয়া বসিয়া ) চাবুক নেই ভালোই হয়েছে ! কথায়-কথায় হচ্ছিল, আবার হাতাহাতি কেন বাব1?

পূর্ণ কট কটু করিয়া পেরুর প্রতি নিরীক্ষণ

পুর্ণ। তুই বেটা ভারি ভীতু !

পেরু। তা বটেই তো! ভীতু ! আমি শুধু শুধু এই রাত্রে চাবুক খেয়ে মরি আর কি, তোর যেরকম গরম মেজাজ দেখছি বাবা, তাতে যে গিন্নীর কাছে এতদ্দিনও টিকে ছিলি, এই তোর পরম ভাগ্যি বলতে হবে।

২৪ জ্যোতিরিন্দ্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

পুর্ণ। চুপ রও! ফের যদ্দি একটা কথা কবি তে] দেখতে পাবি! বেরে। ঘর থেকে! তোর কথা আমি অনেকক্ষণ সহা করেছি, বেরো৷ হারামজাদ। ! (পেরু টেবিলের চতুর্দিকে ধাবমান পুর্ণ তাহাকে ধরিবার চেষ্টা)

পেরু। গুর ভারি স্থখ! “ঘর থেকে বেরো”! ( দৌড়িয় রঙ্গভূমির অপর পার্খে পলায়ন ) আর এক ঘণ্টা আগে যদি বেরোতে বলতিস্, তা হলে আনি বত্তিয়ে যেতেম-_ এখন ওর জায়গায় জুত করে বসি নিয়েছি-_- এখন বলে কিন। “বেরো” (পুর্ণ ভ্রুদ্ধ হইয়া ঘরের প্রবেশ-দ্বারের নিকট গমন দ্বার- উদঘাটন-_ পেরু ধাবমান )

পুর্ণ। এই শেষবার বলছি, বেরে৷ ঘর থেকে, না হলে জোর করে ভ্বানল! দিয়ে বাহিরে ফেলে দেব।

পেরু (স্বগত ) এও যে আবার জানল। দিয়ে বেরুতে বলে! বাড়ির সকলেরই এই একট] বাতিক আছে ন1 কি?

পুর্ণ। (পেরুর নিকটে গিয়া!) আমার কথা শুনছিস ? ( তলবাব লইয়া আক্রমণ )

পেরু। বাবা! দেখি গাট্টা না" (চিৎকার )মালে রে! মালে রে! পুলিস্ম্যান ! চৌকিদার! চোর! চোর ' গেলুম রে! গেলুম রে!

পূর্ণর নিকট হইতে পলায়ন চেষ্টা-- পূর্ণ পশ্চাতে ধাবমান-_ পেরুর চৌকি বাধিয়৷ পতন

-_ও তৎক্ষণাৎ উঠিঘ1 পলায়ন চেষ্টা, বিধুমুখীর প্রবেশ

বিধুমুখী। এ-সব কি? কি ভয়ানক শব্দ!

পুর্ণ বেশ সময়ে এসে»! এখন অনুগ্রহ করে বল দেখি একবার, এইসকল ব্যাপারের মানে কি? এই ব্যক্তি এই বাড়িতে কি করে এল? বাক্তির সঙ্গে যেরূপ মিষ্টালীপ হচ্ছিল, তাও আমি সব শুনেছি

বিধুমুখী। ছিছি ছি! এমন কর্মও করে? দরজার আডাল থেকে দেখছি তবে সব কথাই শুনেছ।

পেরু। (নিকটে আসিয়। ) ভারি অন্যায়

পুর্ণ। চোপরাও হারামজাদা, হলে এই তলবার দিয়ে তোব মুও্ড ছুখান। করে ফেলব।

পেরু ( সরিয়া গিয়া) লোকটা ভারি বদরাগী দেখছি

বিধুমুখী (পুর্ণর প্রতি ) যদি তুমি সব শুনেই থাক, তা হলে অধিক কিছু

কিঞ্চিৎ জলযষোগ ২৫

আর আমার বলবার নেই ; বোধ হয় তা হলে তুমি এতক্ষণে জানতে পেরেছ যে এই লোকটিকে আমি সরকার রেখেছি।

পূর্ণ। এখন তোমার ঠাট্টা মস্কারাম রেখে দ্যা; যেরকম ব্যাপার দেখেছি তাতে তে! আর কিছুমাত্র সন্দেহ নেই।

বিধুমুখী। সন্দেহ! সন্দেহের মানে কি বল দেখি?

পূর্ণ। সন্দেহের মানে কি, আপনি মনে বুঝে দেখ ন1।

বিধুমুখী। তবে দেখছি আমার উপর তোমার একটা জঘন্য সন্দেহ উপস্থিত হয়েছে ?

পেরু। বেটার সঙ্গে আবার শিষ্টাচার কি? আমি যদি হতুম, তে। এখনি ওকে গলাধাক্কা দিয়ে তাড়িয়ে দিতুম।

পূর্ণর পুনবার পেরুর প্রতি আক্রমণ

বিধুমুখী | ( পুর্ণর প্রতি ) যে রকম তোমার ব্যবহার দেখছি-- আজকের অবধি তোমার সঙ্গে আমার ছাড়াছাড়ি হল।

পুর্ণ। বেশ তো! আমারও তাই ইচ্ছে! আজকে থেকে ছাড়াছাড়ি হল, আর এখন ডাইভোর্সেরও আইন হয়েছে, তোমার টাকাকড়ি তোমাকে বুঝিয়ে দিয়েই আমি ব্বচ্ছন্দে চলে যাব

বিধুমুখী। কালই আমি বাপের বাড়ি যাব-- আর সেখানে যদি বাপমায়ে ন] নেয়, তা হলে আমাদের ভারতাশ্রম হোটেলে গিয়ে বাস কবব।

পুর্ণ। আমিও কালকে থেকে উইলসনের হোটেলে গিয়ে থাকব

[ ক্রোধভরে পুর্ণ বিধুমুখীর প্রস্থান

পেরুরাম। দুজনেই চলে গেছে, আমিও আমার পথ দেখি বেটা যে- রকম গোয়ার লোক দ্েখছি-- আবার কখন ঠকে টুকে দেবে গিন্নী এরকম মানুষকে যে ছাড়িয়ে দেবে, তাতে আর আশ্চ কি? (হুড়াহুডিতে একট বোদাম ছিড়িয়! ইতিপুর্বে পড়ায় তাহা টেবিলের নীচে অন্বেষণ )

পূর্ণর পুনঃপ্রবেশ

পেরু। ( টেবিলের নীচে হইতে উঠিবার সময় পুর্ণকে সম্মুখে দর্শন ) পুর্ণ (ক্রুদ্ধ হইয়া) আজ যেরকম ব্যাপার ঘটেছে, তাতে আর কলঙ্ক কিসে যাবে 1: এই তলবার দিয়ে__

২৬ জ্যোতিরিন্দ্রনাথের নাট্যসংগ্রহ

পেরু। (ভগ়়ে)ও বাবারে! আমাকে মারিস নে বাবা! তোর পায়ে. পড়ি বাবা! তোর কর্ম তোকে ছেড়ে দিচ্ছি বাবা!

পুর্ণ। প্রেমবাবু! এই কি তোমার ধর্ম? এই কি তোমার প্রচার? «পরিবার বন্ধন” “পরিবার বন্ধন” “পরিবারের মধ্যে শাস্তি” এইরকম কতকগুলি কথা ক্রমাগত মুখে মুখে বলে বেড়াও, আর তুমি নিজে কিনা এইরকম করে একজন ভদ্রলোকের পরিবারের শান্তি ভঙ্গ কত্তে এস, এখন আবার ধরা পড়ে পাগলের মতো! আপনাকে দেখাতে চেষ্টা করছ? তোমাকে আমি এর সমুচিত শান্তি দেব। ( তলবার হস্তে আক্রমণ পেরু ভয়ে কম্পমান )

পেরু আমি কিছুই বুঝতে পাচ্ছি নে বাবা! আমি নিজে হতে এখানে আসিনি বাবা! বাড়ির পাক্িবেহরারা আমাকে এখানে নিয়ে এসেছে

পুর্ণ। তবে তো আরে! ভালে। দেখছি; আবার পাক্কিবেহারাদের ঘুষ দেওয়! হয়েছে , আর কথা নাঁ_ ( তলবার দ্বারা আঘাত করিতে উদ্যত ) বাবু পুর্ণচন্দ্রকে যে অপমান করে, তার আর নিস্তার নেই ( পেরু পলাইবার চেষ্ট! করিতেছিল, এমন সময়ে পূর্ণবাবুর নাম শুনিয়! থমকিয়! দাড়াইল )

পেরু। আপনি কি পুর্ণবাবু?

পুর্ণ। তবে দেখছি, তুমি আমার নামও জানতে

পেরু না, আমি তা জানতেম না! আমি মনে করেছিলেম, আপনি বাড়ির সরকার

পুর্ণ। (আশ্চর্য হইয়া) তার মানে কি? বল দেখি ব্যাপারট। কি?

পেরু আপনার নাম পুর্ণবাবু' আপনি যে আমার মুরুব্বি। আমি মহাশয়ের কাছে কত বেয়াদবি করেছি, তা বলতে পারি নে। অনুকুলবাবু আমার বিষয় মহাশয়ের কাছে স্থপাবিশ করেছেন! আমার নাম পেরুরাম

পুরণ পেরুরাম।

পেরু অন্ুকূলবাবু আপনাকে একটা পত্র দিয়েছিলেন ঞ& পত্রখান। মহাশয়ের কাছে কালকের আমার নিয়ে যাবার কথা (পত্র প্রধান)

পূর্ণ (পত্র পাঠ) “প্রিয় পর্ণবীবু। এই পত্রবাহ্ককে কোনো! একট] কষ্ধ প্রদান

করিলে বাধিত হব। ব্যক্তিট1 নিতান্ত বোকা, কিন্ত আসলে লোক মন্দ নয়।”

পেরুরাম। ( তাড়াতাড়ি) তিনি তোমাকে বেশ চেনেন__ এই আমার

সার্টিফিকেট (পুর্ণবাবুকে প্রদান )

প্র

কিঞ্চিৎ জলযোগ হ্খ

পুর্ণ। তবে “প্রেমবাবু” নাম তোমার কি করে এল?

পেরু আ! রাম রাম রাম রাম! আমি কি আমার নাম প্রেমবাবু রেখেছি! বাড়ির গিম্নী ঠাকরন আমাকে নাম দিয়েছিলেন! প্রথমে যখন তিনি আমাকে এখানে দেখেছিলেন, তখন তিনি আমাকে চোর ঠাওরেছিলেন-- তার পরে তিনি আমাকে তার সরকার রাখলেন ; তার পর তিনি এতদূর আমার উপর সদয় হয়েছিলেন যে, আমাকে জলযোগ কগতে পর্যস্ত অন্থরোধ কললেন-_ যা হউক, সে জলযোগ আমার অদুষ্টে নাউ

পূর্ণ। (স্বগত ) এতক্ষণে আমি মোদ্বাখানা বুঝতে পাললেম! বিধুমুখী আমাকে নিয়ে রঙ্গ কচ্ছিলেন।

পেরুরাম গিন্নী আমাকে যে কর্ণ দিয়েছেন, তাতে যদি অন্তুগ্রহ করে আমাকে বাহাল রাখেন।

পুর্ণ। আচ্ছা, তা পরে বিবেচনা করা যাবে ( অগ্রে গমন )

পেরু (পশ্চাতে পশ্চাতে গমন করত ) তাহলে চিরকাল মহাশয়ের পায়ের ছুঁচ হয়ে থাকব!

পুর্ণ | (স্বগত ) আচ্ছা ভিয়াব ! আজকে তুমি বডে। এক হাত আমার উপর নিয়েছ! এইবার আমার পালা! রোসো, তোমাকে একটু ভয় দেখাই! একটা মতলব ঠাওরেছি ( চিন্তা করিয়া! ) বিধুমুখীর কামরার জানলা দিয়ে, আমাদের বাডির বাগান বেশ দেখা যায়। ( প্রকাশ্ে পেরুরামের প্রতি ) পেরুরাম, তোমাকে সেই কর্ষে ৰাহাল রাখব-_ কিন্তু তোমার একটি কাজ করতে হবে।

পেরু গোলাম তো হাজির আছে-__ যা আজ্ঞে করবেন

পুর্ণ এই ছুটে! তলবার ন্তাঁও, নীচে বাগানে গিয়ে যুদ্ধ করতে হবে।

পেরু। ত্যা! যুদ্ধ! (দুহাত পিছনে সরিয়া দণ্ডায়মান )

পুর্ণ | সত্যিকের যুদ্ধ নয়; যেন আমরা! দুজনে যুদ্ধ কচ্ছি, এইরকম আমি দেখাতে চাই

পেরু! আর বলতে হবে না। আমি বুঝেছি কিন্তু মিথ্যা যুদ্ধ করতে গিয়ে কার কোথায় আবার দৈবাৎ লেগে যাবে! আর বিশেষ, তখন যুদ্ধ কচ্ছি, এইটে দেখানো নিয়ে